গানের বাইরেও কন্টেন্ট বানাতে চান আরেকটা রক ব্যান্ডের সদস্যরা


দ্য ঢাকা অ্যাপোলগ ডেস্ক


নতুন যুগ, নতুন যুগের শ্রোতা। আগের তুলনায় গান শোনার ধরনটাই পাল্টে গেছে। মিউজিক প্লেয়ারের বদলে জায়গা করে নিয়েছে মোবাইলের মিউজিক অ্যাপ, লেবেল কোম্পানির জায়গা নিয়েছে স্ট্রিমিং সার্ভিস। অ্যালবামের জায়গায় এখন হিসাব-নিকাশ চলে ফেসবুক-ইউটিউবের ভিউ কাউন্ট নিয়ে। অনেক ক্ষেত্রেই মনে হয়, বাংলাদেশের শিল্পীরা যেন এখনো এই নতুন যুগের সাথে ঠিকমতো মানিয়ে নিতে পারেন নি। 

নতুন যুগে গান বানানো নিয়ে আলাপ হলো আরেকটা রক ব্যান্ড-এর সদস্যদের সাথে। নতুনেরা এই বদলকে কিভাবে দেখেন, সেটাই জানার ইচ্ছা আমাদের। আরেকটা রক ব্যান্ডের রিয়াসাত আযমী এবং সাকিব মনজুর জিহান যা বললেন, তাতে বোঝা গেল, নতুন যুগের এইসব সত্য মেনে নিয়েই গান বানাতে কাজ করছেন তারা। 

রিয়াসাত আযমী বললেন, “আমরা যদি যুগের সাথে তাল মিলিয়ে না চলতে পারি, তাহলে তো যেখানে আছি সেখানেই পড়ে থাকব। আমি মনে করি, আমাদের এর সাথে মানিয়ে নিতে হবে। যুগে যুগে মানুষের চাহিদা পাল্টাবে, তার সাথে মানিয়ে নেওয়া ছাড়া উপায় নাই।”

জিহান জানালেন, আগের পি.আর স্ট্র্যাটেজিগুলো এখন আর কাজ করছে না। “এখন সবাই কন্টেন্ট ক্রিয়েটর হতে চায়। শুধু মিউজিসিয়ান হয়ে থাকাটা আর কাজ করছে না। মানুষ যেসব প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করছে, তার সবকিছু করেই মানুষের কাছে পৌঁছানো লাগবে। প্রতিটা প্ল্যাটফর্মের জন্য আলাদা আলাদা কন্টেন্ট বানানো লাগবে।”

জিহান আরো জানালেন, আরেকটা রক ব্যান্ড হিসেবে তাঁরা এরকম গানের বাইরেও কন্টেন্ট বানাতে চান। এখনো নানা সীমাবদ্ধতার কারণে বানাতে না পারলেও সামনেই তাঁরা এমন করবেন। 

এরপরেও প্রশ্ন আসল, গানের বাইরের এত কিছু গানের থেকে চোখ সরিয়ে নেয় কিনা। রাহিন প্রশ্ন করলেন, শূন্যের “বেহুলা” গানটা বের হওয়ার পর গানের থেকেও বেশি আলোচনা যেন হয়েছে মিউজিক ভিডিওটা নিয়ে। গানের থেকে চোখ সরে গেলে, সেটা কি গানের জন্য খারাপ? 

জিহানের মতে, তিনি এতে খারাপ কিছু দেখেন না। “এতে তো ক্ষতি নাই। মিউজিক, গান বদলাবেই। আমরা আগে যেভাবে গান শুনতাম, এখন তো সেভাবে শুনি না, দেখি না। আগে লাইভ পার্ফরমেন্স এক টাইপের হতো৷ টেপ রেকর্ডিং খুব একটা ভালো ছিল না। হয়তো বছরে একটা শো দেখা যেত। এখন আমরা মোবাইলের একটা অ্যাপে টানা গান শুনি। আমাদের কনসাম্পশন মেথড পাল্টে গেছে।

আমরা এখন অনেকগুলো আর্টের ফর্মকে একসাথে মিলিয়ে কাজ করছি। করা লাগবে। ভিজ্যুয়াল এবং মিউজিক, পাশাপাশি। একটা গল্প বলার মতো। আমি এতে কোনো সমস্যা দেখি না। দুটোই শিল্প।”

রিয়াসাত আযমী একমত হলেও জানিয়ে দিলেন, সবকিছু একা একাই করতে আবার তার ভালো লাগে না। তিনি শুধু গান নিয়েই ভাবতে চান। গান এবং প্রমোশনের কাজ দুটোই নিজেরা করতে মোটেও ভালো লাগে না তার। 

পুরো ইন্টারভিউটি পড়ুন: 

বাংলাদেশে একটা নতুন ব্যান্ডের টিকে থাকা অনেক কঠিন: আরেকটা রক ব্যান্ড

বাংলাদেশে একটা নতুন ব্যান্ডের টিকে থাকা অনেক কঠিন: আরেকটা রক ব্যান্ড

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Leave a comment
scroll to top